Whatsaap Status, Whatsaap Status In Hindi, Romantic Whatsapp Status, Cool Whatsaap Status <meta content='nositelinkssearchbox' name='google'/> cool whatsaap status in hindi #নষ্ট_গলি পর্ব-৪ [Red Light area No 4]

head 1st

#নষ্ট_গলি পর্ব-৪ [Red Light area No 4]

#নষ্ট_গলি
পর্ব-৪



লেখা-মিম

সোহানের বাসার ড্রইংরুমে বসে অাছে মায়া। পাশেই দশ বারোটা শপিং ব্যাগ। এসবগুলো শপিং মায়ার জন্য করেছে সোহান। রেস্টুরেন্ট থেকে ফেরার পথে মার্কেট হয়ে এসেছে দুজন। নিজেকে বেশ সুস্থ মনে হচ্ছে মায়ার। মন ভালো থাকলে শরীরটাও ভালো লাগে সেটা আবারও প্রমানিত হলো। বাসার কাজের লোক দুটো মায়াকে আড়চোখে দেখছে। এর অাগেও তারা এই বাসায় একজন মেয়েকে প্রায়ই আসতে দেখতো। মেয়ে অাসতো, রাতে থাকতো, পরদিন সকালে চলে যেতো। অাবার কখনো দু তিনদিন এখানে থেকে যেতো। সোহান এতক্ষন ফোনে কথা বলছিলো। কলটা কেটেই চলে এলো মায়ার মুখোমুখি।
-" কি ব্যাপার? বসে অাছো যে? এখনো ফ্রেশ হচ্ছো না?'
-" বাথরুমটা কোন দিকে?"
-" ওহ অামার সাথে এসো।"
বাসায় পড়ার জন্য কিছু প্লাজো, গেন্জি অার স্কার্ট কিনে দিয়েছে সোহান ওকে। ব্যাগ থেকে একটা গেন্জি অার স্কার্ট হাতে নিয়ে সোহানের পিছু পিছু যাচ্ছে মায়া। একটা রুমে এসে লাইট জ্বালালো সোহান। সুন্দর সাজানো গোছানো একটা রুম। রুমে এসে অাঙুল দিয়ে ওয়াশরুমটা দেখিয়ে সোহান বললো,
-" ওটা ওয়াশরুম। ফেসওয়াশ সাবান সব রাখা অাছে। গিয়ে ফ্রেশ হয়ে এসো যাও। অামি এই রুমেই অাছি। কিছু লাগলে অামাকে বলো।"
মায়া কিছু না বলেই ওয়াশরুমে চলে গেলো। জাহিদের নাম্বারে ডায়াল করলো সোহান।
-" জোনাকিকে বলেছো মায়া যে অামার এখানে থাকবে তিন চারদিন?"
-" জ্বি স্যার।"
-" ঝামেলা করেনি তো?"
-" না স্যার।"
-" রাতে খেয়েছো?"
-" জ্বি না স্যার।"
-" তোমার ফ্যামিলিতে কে কে যেনো অাছে?"
-" মা বাবা, ছোট দুই বোন।"
-" যাও ওদের নিয়ে বাহির থেকে খেয়ে এসো। অাজকে তোমার টাকা দিয়ে বিল পে করো। কাল অামি তোমাকে টাকা দিয়ে দিবো।"
-" লাগবে না স্যার। বাসায় রান্না হচ্ছে।"
-" যাও তো। কথা বাড়িওনা ।"
-" স্যার কাল যাই। অার নয়তো অাজকের রান্নাটা ওয়েস্ট হবে।"
-" কি রান্নাকরেছে অাজ ঘরে।"
-" চিংড়ি দিয়ে কচুশাক, বেগুন-ডিমের তরকারি অার ডাল।"
-" ওহ তোমার প্রিয় খাবার রান্না হয়েছে অাজ ।"
" অাপনি জানেন এগুলো অামার প্রিয় খাবার?"
-" অামি সবই খেয়াল করি জাহিদ। তুমি অামার সাথে প্রতিদিন আট নয় ঘন্টা কাটাও। তোমার পছন্দ অপছন্দ লক্ষ্য করাটাই স্বাভাবিক।"
-" জ্বি স্যার।"
-' অাচ্ছা কালই যেও। এখন রাখি।"
-" জ্বি স্যার।"
ফোনটা রেখে বিছানায় হেলান দিয়ে বসে অাছে সোহান। মিনিট দশেক পর বেরিয়ে এলো মায়া। ওকে খুব ফ্রেশ দেখাচ্ছে। এর অাগে স্কার্ট সে কখনো পড়েনি। অাজই প্রথম নিজের কাছে উদ্ভট লাগছে নিজেকে। মনে হচ্ছে লুঙ্গি পড়েছে।
-" জ্বর টা কি এখন অাছে মায়া?"
-" নাহ তেমন নেই। সহ্য করার মতো।"
-" এই শামীম, ড্রইং রুম থেকে মেডিসিনের প্যাকেটটা দিয়ে যাও তো। মায়া, তুমি বসো এখানে।"
খাটের একপাশে জানালার দিকে পিঠ ঠেকিয়ে বসলো মায়া। বাহির থেকে বাতাস এসে ওর ঘাড়ে পিঠে লাগছে। পিছনের চুলগুলো বাতাসে উড়ে বার সামনের দিকে এলোমেলো হয়ে অাসছে। কাজের লোক শামীম এসে মেডিসিনের প্যাকেটটা দিয়ে গেলো। সেইসাথে এক বোতল পানি। প্রেসক্রিপশন দেখে ট্যাবলেট বের করে দিচ্ছে সোহান। মায়ার দিকে মেডিসিন অার পানির বোতল এগিয়ে দিয়ে বললো
-" খাও।"

মেডিসিন খেয়ে পানির বোতলটা সোহানের দিকে এগিয়ে দিলো মায়া। চুলগুলো খোপা করতে যাচ্ছিলো ঠিক সে সময় সোহান বললো,
-" উড়তে দাও মায়া। দেখতে ভালো লাগছে।"
-" অাপনাকে যত দেখছি তত অবাক হচ্ছি। খুব রহস্যময় লাগছে অাপনাকে। এতটা যত্ন পাওয়ার অধিকার অামার নেই। তবু দিচ্ছেন। কেনো বলুন তো?"
-" অাসো পুরো ব্যাপারটা ক্লিয়ার করি। চাইলে অামি অন্য দশটা কাস্টমারের মতো ব্যবহার তোমার সাথে করতে পারতাম। সেটা হতো শুধুমাত্র শারীরিক চাহিদা মেটানোর জন্য। মানসিক চাহিদা মিটতো না।সারাদিন নানান কাজে ব্যস্ত থাকি। আমার ইচ্ছে হয় ব্যস্ততার মাঝেও কারো সাথে মন খুলে দুমিনিট কথা বলি। কেউ অামাকে ফোন করে খোঁজ খবর নিক। অামি ভালো অাছি কি না, অামার মনটা ভালো অাছে কিনা সেসব খোঁজ করুক। অামার খুঁটিনাটি সমস্ত বিষয়গুলো খেয়াল করুক। দিনশেষে কারও সাথে কথা বলে অামার সারাদিনের মানসিক ক্লান্তিটা মিটাই। শরীরের চাহিদা টাকা দিলেই মিটে,মনের খোড়াক টাকায় মিলে না। এবার অাসি তোমাকে কেনো সিলেক্ট করলাম সে প্রসঙ্গে। প্রথমটা ফিন্যান্সিয়ালি আমার স্ট্যাটাসের ছিলো। একদম খাপে খাপ মিলে। কিন্তু প্রেম করে বিশেষ শান্তি পাইনি। মনের খোড়াক মিটে নি। দ্বিতীয়টা ছিলো মিডেল ক্লাস। অাস্ত একটা জাদরেল ছিলো ঐটা। সেখানে শান্তি পাওয়ার কোনো প্রশ্নই অাসে না। অার তিন নম্বরটা অামাকে বুঝতো না। বলতাম একটা বুঝতো অারেকটা।সেটা ছিলো নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবারের। সেখানেও শান্তি পাইনি। সব ক্লাসের মেয়েদের সাথে প্রেম করে দেখেছি। সুবিধা করতে পারিনি। শেষমেষ তোমাদের পাড়ায় যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কেনো জানো? তোমাদের মেন্টালিটি একটু অন্যরকম। তোমরা সহজে কঠিন ব্যাপার হজম করতে পারো। তোমাদের কাছে প্রতিদিন কমপক্ষে সাত অাটটা কাস্টমার অাসে। একেক কাস্টমার একেক রকম। কাউকে তোমাদের পছন্দ হয় অার কাউকে হয়না। তবু তাদের শুয়ে পড়ো তোমরা। ব্যাপারটা যথেষ্ট ধৈর্য্যের। চাইলেই যার তার সাথে শুয়ে পড়া যায় না। যাকে ভালো লাগে না তার সাথে ইন্টিমেট হওয়াটা খুবই পীড়াদায়ক কাজ। তোমরা কাজটা বেশ হাসিমুখে সামাল দাও। তাছাড়া প্রতিদিন সাত অাটজনের সাথে ইন্টিমেট হওয়াটা কোনো মুখের কথা না। যথেষ্ট কষ্টের কাজ।তবু তোমরা করো। যে মেয়ে হাসিমুখে এই কঠিন ব্যাপারগুলো সামাল দিতে জানে সে অারও অনেক কিছুই সামাল দিতে পারবে। একজন পুরুষের মনের খোড়াক হাসিমুখে মিটানো তাদের পক্ষে কোনো ব্যাপার না। তুমি যেমন ভালোবাসার কাঙাল তেমনি অামিও। তুমি এখানে একদম অামার বউয়ের মতো করে থাকবে। ধরে নাও এটা তোমার সংসার। তুমি যাস্ট অামার ছোট বড় সমস্ত ব্যাপারগুলো, ভালো লাগা-মন্দ লাগাগুলোকে দেখবে। অার প্লিজ কখনো কোনো বিষয় নিয়ে প্যানপ্যান করতে পারবে না। অামি হাজার বকা দিলেও কখনো অামার সাথে রাগ করতে পারবে না। তুমি কি রাজি?"

মায়ার কাছে কথাগুলো এলোমেলো লাগছে। শুরুর দিকে সব ঠিকই লাগছিলো। যখন শুনলো তুমি অামার বউয়ের মতো থাকবে, এটা তোমার সংসার এরপর থেকে সব তালগোল পাকিয়ে যাচ্ছে। এতটাও কি পাওয়ার যোগ্যতা সে রাখে। হতে পারে সে মিথ্যে বউ, মিথ্যে সংসার তবুও অনুভুতিটা সত্যিকারের মনে হচ্ছে। শুধুমাত্র মনের খোড়াক মিটানোর বিনিময়ে এতকিছু করছে লোকটা? মনের খোড়াকের এত মূল্য? কান্না পাচ্ছে মায়ার। কেনো পাচ্ছে সেটা সে জানে না। জ্বরটা অাবার বাড়ছে। বোধহয় খুশিতে জ্বর বেড়ে যাচ্ছে। মানুষটাকে একবার ছুয়ে দেখতে ইচ্ছে হচ্ছে।
বড্ড দ্বিধা দ্বন্দে ভুগছে মায়া। সে কি একটাবার মানুষটার হাত ধরার অাবদার ধরবে? একটাবার চোখে মুখে অালতো করে ছুঁয়ে দেখতে চাইবে?
(চলবে)

Shear by :- ঝুমা হালদার 
ভালো লাগলে শেয়ার করতে ভুলবেনা।.......

Post a Comment

0 Comments